জাতীয়

দিনাজপুরের হতদরিদ্রদের ১৫০০ কম্বল দিল বসুন্ধরা

 

দিনাজপুর প্রতিনিধি : বসুন্ধরা গ্রুপের অর্থায়নে ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে দিনাজপুরের বোচাগঞ্জের সেতাবগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বীরগঞ্জ উপজেলার বীরগঞ্জ সরকারি কলেজ, কাহারোল উপজেলা চত্তর, খানাসামা উপজেলায় আলোক ঝাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স চত্তরে, চিরিরবন্দরের মাঝাপাড়া সের্মাস মা অটোমিলের চাতালে, বিরামপুরের মেধা বিকাশ স্কুল মাঠে, নবাবগঞ্জ সরকারি বহুমুখী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে, সদর উপজেলার খোদমাধবপুর মিস্ত্রিপাড়া উন্নয়ন সংঘের মাঠে, ফুলবাড়ী উপজেলার পানিকাটা দরগাবাড়ী তাহফিজুল কোরআন হাফিজিয়া মাদ্রাসা মাঠে, পার্বতীপুর উপজেলার সরকারি বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অসহায় শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ জেলা উপজেলা ও দিনাজপুর সরকারি কলেজ শাখা গুলো এ আয়োজন করে। সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান ।

এছাড়াও ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল শুভসংঘের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ অফিসার্স ক্লাব চত্ত্বরে ১০০ কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার দুপুর দেড়টায় উপজেলার অসহায় পরিবারের লোকজনের মাঝে এ সকল কম্বল তুলে দেওয়া হয়।
‘বসুন্ধরা করোনা ভাইরাসের সময় হামাক খাবার দিয়েছে। এবারো তোমা হামাক বসুন্ধরা থাকি কম্বল দিলেন। হামরা জারোত (শীত) খুব কষ্টে ছিনো কেউ দেখে না। তোমরা কম্বল খান দিয়া মোর খুব উপকার করলেন বাহে। এখন রাইতোত আরামে নিন (ঘুম) পারির পাইমো।’ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা আরেফা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে হুইলচেয়ারে করে শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেলে শীতবস্ত্র নিতে এসে এই মন্তব্য করেন বাউরা ইউনিয়নের নবীনগর গ্রামের বাসিন্দা ময়নাল হোসেন (৫৫)। বসুন্ধরার উদ্যোগে ও কালের কণ্ঠ পত্রিকার শুভসংঘের আয়োজনে কম্বল পাওয়া ৩০০ জনের সবার মুখে ছিল তৃপ্তির হাসি।

 

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button