অপরাধ

পপুলার ইন্সুরেন্সের পালিত ভাইয়ের খেল

 

বিশেষ প্রতিনিধি : এত দিন হৃদরোগে আক্রান্ত ভাইকে না দেখে তার মৃত্যুর পর মামলা করলো পালিত ভাই। এ যেন মাছের মায়ের পুত্র শোক। মৃত্যু শয্যায় ভাইয়ের জন্যে এক টাকা খরচ না করে মৃত্যুর পর করলো হত্যা মামলা। এই পালিত ভাই হলো পপুলার লাইফ ইন্সুরেন্সের ভাইস চেয়ারম্যান কবির আহমেদ। কবিরের নানা ষড়যন্ত্র মামলা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষুদ্ধ হয়ে পপুলারের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান আহমেদের স্ত্রী জান্নাত সংবাদ সম্মেলন করেছেন আজ বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী।
তিনি জানান, গত ২৪ জানুয়ারি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান আহমেদের মৃত্যু হয়। হাসান আহমেদের ভাই কবির আহমেদ অভিযোগ করেন, গৃহবন্দি অবস্থায় নির্যাতনে তার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। এমন অভিযোগে মামলা করেন তিনি। যেখানে আসামি করা হয়েছে হাসান আহমেদের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসসহ তার পরিবারের আট সদস্যকে।দেশের জীবন বিমা খাতের প্রতিষ্ঠান পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান আহমেদের মৃত্যু নিয়ে চলছে সংঘবদ্ধ দুর্নীতিবাজদের নানা খেল। এই খেলের নেপথ্যে কাজ করছে ‘এক এমডি’। এই বিতর্কিত এমডির বিরুদ্ধে রয়েছে নানা জাল জালিয়াতির কাহিনী।যার ইন্ধনে চলছে দুর্নীতি ধামাচাপার নাটকীয় কাহিনী ।

গত ২৪ জানুয়ারি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়। হাসান আহমেদের ভাই কবির আহমেদ অভিযোগ করেন, গৃহবন্দি অবস্থায় নির্যাতনে তার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। এমন অভিযোগে মামলা করেছেন তিনি। যেখানে আসামি করা হয়েছে হাসান আহমেদের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসসহ তার পরিবারের আট সদস্যকে।মামলাটিকে সাজানো ও হয়রানিমূলক উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন অভিযুক্তরা।
তারা বলছেন, পপুলার লাইফে দীর্ঘ সময় হাসান আহমেদ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করলেও প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে চিকিৎসা বাবদ কোনো সহযোগিতা দেয়া হয়নি। এমনকি যেদিন হাসান আহমেদ মারা যান, সেদিন পপুলার লাইফের পক্ষ থেকে জানাজাসহ শোকসন্তপ্ত পরিবারের কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি। জানাজায় প্রতিষ্ঠানের কেউ অংশগ্রহণ করেননি বলেও অভিযোগ করেন জান্নাতুল ফেরদৌস।
এমন অবস্থায় হয়রানিমূলক মামলায় পুলিশি ঝামেলা থেকে মুক্ত থাকতে সংবাদ সম্মেলনে সহযোগিতা চেয়েছে পরিবারটি।
পরিবারের এমন অভিযোগে যোগাযোগ করা হলে পপুলার লাইফের পক্ষ থেকে নথিপত্র উপস্থাপন করে বলা হয়, বোর্ডসভায় হাসান আহমেদ ব্রেইন স্ট্রোক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ায় তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ অবস্থায় কোম্পানির ভাইস চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেনকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এবং সেই বোর্ডসভায় হাসান আহমেদের যাবতীয় চিকিৎসার খরচ পপুলার লাইফের পক্ষ থেকে বহন করা হবে বলেও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।এমন সিদ্ধান্তের পরও তার পরিবার সহযোগিতা নিতে অস্বীকার করে এবং ভালো হসপিটালে চিকিৎসা না করিয়ে ঘরে রেখেছে বলে জানানো হয়। বিষয়টি জান্নাতুল ফেরদৌসের নজরে এলে তিনি বলেন, আমাকে কোনো সহযোগিতা করা হয়নি। বরং হাসপাতালের বিল যখন ১০ লাখ টাকা হলো, তখন পপুলার লাইফের পক্ষ থেকে বলা হলো এত বিল দেয়া সম্ভব নয়। হাসান আহমেদের সন্তানদের প্রাপ্ত পাওয়া থেকে বঞ্চিত করার জন্য উল্টো মামলা করে এখন হয়রানি করা হচ্ছে।
পপুলার লাইফে হাসান আহমেদের ৪০ লাখ ২৮ হাজার ৫৫৪টি শেয়ার আছে। সেখান থেকে গত ১১ অক্টোবর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ওয়েবসাইটে তার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসকে ১ লাখ ৭৫ হাজার শেয়ার উপহার হিসেবে দেয়ার কথা জানানো হয়। সেদিন কোম্পানিটির শেয়ারদর ৮৯ টাকা ৪০ পয়সা হিসাবে ১ লাখ ৭৫ হাজার শেয়ারের বাজারমূল্য আসে ১ কোটি ৫৬ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

কিন্তু এটিও অস্বীকার করেছেন জান্নাতুল ফেরদৌস। তিনি বলেন, আমাকে কেউ শেয়ার দেয়নি। আর আমি শেয়ার বিক্রি করে কোনো টাকা পায়নি। সে শেয়ার কারা নিয়েছে, কাদের কাছে আছে সেটিও আমি জানি না।গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির কাছে শেয়ারগুলো উপহার হিসেবে দেয়ার অনুমোদন চেয়ে চিঠি দেন হাসান আহমেদ। তার আগে বিএসইসি আরেক চিঠিতে পপুলার লাইফকে জানায়, উদ্যোক্তা পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করে অতিরিক্ত অংশ হস্তান্তরযোগ্য। বর্তমানে কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৩০ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শেয়ার আছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের কাছে।
পপুলার লাইফের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান আহমেদের মৃত্যুতে তার ভাই কবির আহমেদ গত ২৫ জানুয়ারি পল্টন থানায় মামলা করেন। মামলা নম্বর ৫৫।যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, অভিযোগকারীর বড় ভাই হাসান আহমেদকে গৃহবন্দি অবস্থায় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করা হয়েছে। আর মৃত্যুর জন্য স্ত্রীসহ দায়ী করা হয়েছে তার মা পারবিন আকিল, বোন রুনা লাইলাসহ এরশাদ, চাঁদনী নূর, মেহমুদ রেজা, ফাহিম ফারুক, শাহরুখ খান সাজিদকে।

জান্নাতুল ফেরদৌস সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তার স্বামী স্ট্রোকের (মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ) রোগী ছিলেন। তাকে পান্থপথের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়। অসুস্থতার কারণে তিনি দাঁড়াতে পারতেন না। হুইলচেয়ারে চলাফেরা করতেন। তার মৃত্যুর পর সম্পত্তি আত্মসাতের জন্য হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা করা হয়েছে।সংবাদ সম্মেলনে হাসান আহমেদের তিন সন্তানসহ অভিযুক্তরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে বৃহস্পতিবার কবির হোসেনের সেলফোনে কয়েকবার কল করা হয়। এতে সাড়া না দেয়ায় খুদেবার্তা পাঠানো হয়। কিন্তু তাতেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

 

 

 

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button