বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

হেনিগ ব্র্যান্ডের মূত্র তেলেসমাতি

 

ইব্রামি খলিল : হেনিগ ব্র্যান্ডের মূত্র তেলেসমাতি চলছে। প্রায় সাড়ে তিনশ বছরেরও বেশি আগে তিনি এ তেলেসমাতি আবিস্কার করেন। জার্মান অ্যালকেমিস্ট হেনিগ ব্র্যান্ড কে পশ্চিমা দেশগুলো বলত ‘ফিলোসফার’স স্টোন। পুরো মধ্যযুগ জুড়ে যার খোঁজ করেছিলেন মুসলিম বিজ্ঞানীরাও। আধুনিক কালের শুরুর দিকে এসে হেনিগও এমন এক অজানা উপাদানের খোঁজ শুরু করেছিলেন যার ছোঁয়ায় সীসা বা তামার মতো সাধারণ ধাতুও সোনায় পরিণত হয়। সেই সঙ্গে যে উপাদান সমস্ত রোগের প্রতিরোধক।

ওই অজানা উপাদানের খোঁজ করেছেন বহু অ্যালকেমিস্ট। হেনিগও ব্যতিক্রম নন। তার ধারণা ছিল যে মানুষের মূত্র থেকে ওই অজানা উপাদান তৈরি করা যায়। যার ছোঁয়ায় সোনা মেলে। অর্থাৎ মূত্রেই রয়েছে সোনা।হেনিগের সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে অনেকের মতে, তার জন্ম ১৬৩০ সালে। যদিও তার মৃত্যু কবে হয়েছিল, তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। তা ১৬৯২ সালে অথবা ১৭১০ সালও হতে পারে। জার্মানির হামবুর্গের এই বাসিন্দা সেনাবাহিনীতে কর্মরত ছিলেন। শোনা যায়, জুনিয়র অফিসার হিসেবে যুদ্ধেও গিয়েছিলেন।

অনেকের দাবি, মধ্যবিত্ত পরিবারের হেনিগের প্রথাগত পড়াশোনা বেশি দূর পর্যন্ত না হলেও আজীবন নানা গবেষণায় মগ্ন ছিলেন তিনি। এমনও শোনা যায়, গবেষণার অর্থ জোটাতে মোটা অঙ্কের পণ নিয়ে বিয়ে করেছিলেন। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর আবার বিয়ে করেন। এবার এক ধনবান বিধবাকে।

গবেষণাই ছিল হেনিগের জীবন। তবে সোনা পাওয়ার লক্ষ্যে বিপুল পরিমাণ মূত্র কোথায় পাওয়া যায়? অনেকের দাবি, পানশালার মালিকের সঙ্গে রফা করে মূত্র জোগাড় করার কাজে নেমেছিলেন হেনিগ।

সোনা তৈরিতে কী কী উপাদান প্রয়োজন বলে মনে করেছিলেন জার্মান অ্যালকেমিস্ট? এ ক্ষেত্রে এফ টি কেসলারের লেখা বইয়ের একটি রেসিপি হেনিগের চোখে পড়েছিল বলে দাবি। তাতে ফিটকিরি, পটাশিয়াম নাইট্রেট এবং মূত্রের মিশ্রণের কথা লেখা রয়েছে। যার মাধ্যমে ধাতুকে রুপায় পরিণত করা যায় বলে দাবি করা হয়েছিল। যদিও ওই ফর্মূলা কাজ করেনি।

নিজেই গবেষণাগারে সোনা তৈরির কাজে নেমেছিলেন হেনিগ। গবেষণার জন্য ওই পানশালা থেকে মদ ও বিয়ার খেয়ে মাতাল লোকজনের তাজা প্রস্রাব সংগ্রহ করতে শুরু করেন। এর পর তা বাড়ির বেসমেন্টে জমা করতেন। এক-আধ লিটার নয়, দীর্ঘ দিন ধরে এ ভাবে নাকি দেড় হাজার গ্যালন মূত্র জমা করেছিলেন তিনি।

হেনিগের এই মূত্রাধারের জেরে তার বাড়ির আশপাশে কেমন ‘সুবাস’ ছড়াত, সে নিয়ে আলোচনা পরে হবে। তবে সে যুগে এমন উদ্ভট শখ অনেকেরই ছিল বলে দাবি। সেই সময় সার তৈরির কাজে, চামড়া নরম করতে মূত্রের ব্যবহার করা হত। এমনকি, দাঁত পরিষ্কারের জন্য মূত্র ব্যবহার করতেন অনেকে।

তবে হেনিগের লক্ষ্য ছিল অন্য। ১৬৬৯ সাল নাগাদ থেকে মূত্র থেকে এক উপাদান খুঁজে পেয়েছিলেন তিনি। সে জন্য কী করতেন হেনিগ?অনেকের দাবি, তাজা মূত্র সংগ্রহের পর তা বেশ কয়েক দিন রেখে দিতেন তিনি। তা থেকে তীব্র ঝাঁঝালো গন্ধ বের হতে থাকলে মূত্র ফোটাতে শুরু করতেন। এক সময় তা ঘন সিরাপের মতো হয়ে এলে ফোটানো বন্ধ করতেন।

ওই ঘন থকথকে মূত্রকে এর পর গরম করতে শুরু করতেন হেনিগ। লালচে তেলের মতো হয়ে এলে তা ছেঁকে বের করে নিতেন। ঠাণ্ডা হয়ে এলে তার উপরের অংশ কালো রঙের স্পঞ্জের মতো হত। নীচের দিকটা দেখাত অনেকটা জমানো লবণের মতো। এর পর ওই লবণের অংশটি বাদ দিয়ে উপরের কালো অংশের সঙ্গে লাল তেল মিশিয়ে আবারও ফোটানো হত। এ বার ওই মিশ্রণটি টানা ১৬ ঘণ্টা ধরে কড়া আঁচে গরম করতেন তিনি।

এভাবেই গোটা প্রক্রিয়ার পর সাদাটে ধোঁয়া বের হতে থাকলে তেল আলাদা হয়ে যেত। এবার যে উপাদানটি বের হয়ে আসত, তা সম্ভবত জলের সংস্পর্শে এসে চকচকে একটি কঠিন আকার নিয়েছিল। ওই পদার্থ নিয়েই এককালে হামলে পড়ে গোটা দুনিয়া।

কী সেই পদার্থ? হেনিগ তার নাম দিয়েছিলেন ‘ফসফরাস’। গ্রিক ভাষায় যার অর্থ আলো বহনকারী। ওই চকচকে অংশটি অক্সিজেনের সংস্পর্শে আসামাত্রই জ্বলে উঠত। এমনকি, অন্ধকারে তা জ্বলজ্বল করত।

সোনা তৈরির চেষ্টা বন্ধ করেননি হেনিগ। তাতে ব্যর্থ হলেও দুনিয়া তাকে চেনে ফসফরাসের আবিষ্কর্তা হিসাবে। বিস্ফোরক তৈরিতে এই অতি শক্তিশালী উপাদান কাজে লাগানো হয়।

আচমকাই ওই আবিষ্কারের পর তা নিয়ে মাতামাতির বদলে গোপন রেখেছিলেন হেনিগ। পরে জার্মানির ড্রেসডেনের এক ব্যক্তিকে তা চড়া মূল্যে বেচে দেন। তবে বহু যুগ পরে হেনিগের ওই আবিষ্কারই অমূল্য রতনে পরিণত হয়!

 

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button