আন্তর্জাতিক

রুশ হামলায় ৫ জন নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেন


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পশ্চিমা দেশগুলো অস্ত্র সরবরাহ করায় ইউক্রেনে সংঘাত অবসান না হয়ে দীর্ঘমেয়াদি লড়াইয়ে পরিণত হতে যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। সংকট সমাধানে মস্কো সফরে গেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। এদিকে, ২৪ ঘণ্টায় রুশ হামলায় আরও ৫ জন নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান রুখতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন পক্ষ। এরই ধারাবাহিকতায় মস্কো সফরে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। ইউক্রেন সংকট সমাধানে জাতিসংঘের পদক্ষেপ যথেষ্ট নয় বলে বিশ্বজুড়ে সমালোচনার মধ্যেই তার এ সফর। এদিকে, মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটো রাশিয়ার সাথে ছায়া যুদ্ধে জড়িয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। পশ্চিমা দেশগুলো কিয়েভকে অস্ত্র সরবরাহ করায় সংঘাত দীর্ঘস্থায়ী রূপ নিচ্ছে জানিয়ে পারমাণবিক সংঘাতের ব্যাপারেও সতর্ক করেন তিনি। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেন, যে কোনও পরিস্থিতিতে যেখানে সশস্ত্র বাহিনী নিযুক্ত থাকে সেটি অবশ্যই চুক্তির মাধ্যমে সমাপ্তি টানা সম্ভব। তবে এই চুক্তি সামরিক পদক্ষেপের ব্যাপকতার উপর নির্ভর করবে। তবে, ল্যাভরভ বিশ্বকে ভয় দেখাতে চান বলে পাল্টা অভিযোগ করেছেন ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা। অন্যদিকে, রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে উস্কানি দিতে পশ্চিমারা বিদেশি গণমাধ্যম ও সামাজিক গণমাধ্যম ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। এদিকে, ইউক্রেন থেকে আসা সব পণ্যের উপর শুল্ক প্রত্যাহার করেছে ব্রিটিশ সরকার। পাশাপাশি রুশ পণ্য এবং প্রযুক্তি রপ্তানির উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। সুইডেন ও ফিনল্যান্ড আগামী ১৬ই মে ন্যাটোতে যোগ দেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে পারে বলে দাবি করেছে ফিনল্যান্ডের গণমাধ্যম। যদিও, দেশ দুটি ন্যাটোতে যোগ দিলে বাল্টিক অঞ্চলে পারমাণবিক অস্ত্র মোতায়েনের হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছে রাশিয়া। এদিকে, কিয়েভ সফরে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির সঙ্গে বৈঠকের পর সোমবার মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেছেন, রাশিয়াকে দুর্বল দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। সঠিক অস্ত্র পেলে যুদ্ধে ইউক্রেনই জিতবে। এদিকে, ইউক্রেনের মধ্য ও পূর্বাঞ্চলে পাঁচটি রেলস্টেশনে রুশ শেল হামলায় ৫ জন নিহতের দাবি করা হয়েছে। রোববার ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভ সফর করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি বিøংকেন। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তারা। ইউক্রেন এবং মধ্য ও পূর্ব ইউরোপের ১৫টি দেশকে ৭১৩ মিলিয়ন ডলারের সামরিক সহায়তার প্রতিশ্রæতি দেয় যুক্তরাষ্ট্র। পরে ইউক্রেনের কাছে ১৬৫ মিলিয়ন ডলারের অস্ত্র বিক্রিতে অনুমোদন দেয় দেশটি। সহায়তার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানান জেলেনস্কি। ইউক্রেন সরকারের সঙ্গে তিন ঘণ্টার বৈঠক শেষে পোল্যান্ডে সংবাদ সম্মেলন করেন লয়েড অস্টিন। লয়েড অস্টিন বলেন, আমরা ইউক্রেনকে সার্বভৌম এবং নিজেদের সুরক্ষায় সক্ষম একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে দেখতে চাই। আমরা রাশিয়াকে এতটা দুর্বল দেখতে চাই যাতে তারা ইউক্রেনে আক্রমণের মতো কোনও কর্মকাÐ পরিচালনা করতে সক্ষম না হয়। ইউক্রেনকে সঠিক অস্ত্র-সরঞ্জাম দেয়া হলে যুদ্ধে ইউক্রেনই জিতবে। ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক সহায়তা আগুনে তেল ঢালার শামিল বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওয়াশিংটনে শীর্ষ রুশ ক‚টনীতিক। আর রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন অভিযোগ তোলেন, পশ্চিমারা রুশ সমাজকে বিভক্ত ও দেশকে ভেতর থেকে ধ্বংস করতে চাইছে। আগামী সপ্তাহ থেকে কিছু মার্কিন ক‚টনৈতিক ইউক্রেনে ফিরতে শুরু করবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিøংকেন। শুরুতে পশ্চিম ইউক্রেনের লিভিভে অবস্থান করবেন তারা।
এছাড়া ইউক্রেনে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তদন্তে ইইউ দলের সঙ্গে যুক্ত হতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসি।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button