জাতীয়

পাকিস্তানী বাঙ্গালীদের অবিলম্বে পাকিস্তানে পুনর্বাসন চাই: নেয়াজ

স্টাফ রিপোর্টার : পাকিস্তানী বাঙ্গালীদের অবিলম্বে পাকিস্তানে পুনর্বাসনের আহবান জানিয়েছেন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ (ন্যাপ বাংলাদেশ) এর মহাসচিব জননেতা নেয়াজ আহমদ খান। আজ দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে “পাকিস্তানে বসবাসরত বাঙ্গালী মুসলমানদের অবিলম্বে পুনর্বাসন ও সেদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের দাবীতে” বাংলাদেশী বিহারী পুনর্বাসন সংসদ (বিবিআরএ) আয়োজিত এ মানববন্ধনে তিনি এ আহবান জানান।

আজ (২৯.০৫.২২ রবিবার) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে “পাকিস্তানে বসবাসরত বাঙ্গালী মুসলমানদের অবিলম্বে পুনর্বাসন ও সেদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের দাবীতে” বাংলাদেশী বিহারী পুনর্বাসন সংসদ (বিবিআরএ) এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোঃ কাওসার পারভেজ ভুলু মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন। মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ (ন্যাপ বাংলাদেশ) এর মহাসচিব জননেতা নেয়াজ আহমদ খান।

নেয়াজ আহমদ খান বলেন, ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টিতে বাঙ্গালী মুসলমানের অবদান বেশী থাকা সত্ত্বেও আজ পাকিস্তানে বাংলা ভাষাভাষি বাঙ্গালী মুসলমানগণ অবহেলিত ও উপেক্ষিত থাকায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। আজও সেখানে বাঙ্গালী মুসলমানদের ঘুষ দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র বা সনাক্তি কার্ড ও পাসপোর্ট সংগ্রহ করার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে পাকিস্তানী বাঙ্গালীদের ঘরে ঘরে পাসপোর্ট ও তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র পৌছে দেওয়ার জন্য পাকিস্তান সরকার ও জনগনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের আটকেপড়া পাকিস্তানী পরিচয় দানকারী রিলিফখোর চক্রকে ইমিগ্রেশন আইনে গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন যে, বাঙ্গালী মুসলমানদের দুর্দশা লাঘবে পাকিস্তানের সরকার ও জনগনকে এগিয়ে আসতে হবে। বক্তাগণ বাংলাদেশের অতিথিপরায়ন জনগণকে বিশ্বের বাংলাভাষী মানুষের নেতা উল্লেখ করে বলেন যে, পাকিস্তান অবহেলিত ও নিপীড়িত বাঙ্গালীদের সহযোগীতায় পাকিস্তান সরকারের নিকট সমস্যা তুলে ধরা ও সমস্যা সমাধানে হস্ত প্রসারিত করা আবশ্যক হয়ে পড়েছে। বক্তাগণ জানান যে, বাংলাদেশ সর্বপ্রথম ২০০৩, ২০০৬ ও ২০০৮ সালে বিহারী ক্যাম্পে বসবাসরত উর্দূভাষী বিহারীদেরকে বাংলাদেশ সরকার, জনগণ, নির্বাচন কমিশন, সেনাবাহিনী ও সকল রাজনৈতিক দল মানবিক বিবেচনায় ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করেছেন। এজন্য কর্মসূচির আয়োজকরা বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিককে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। বক্তারা তাদের বক্তব্যে পাকিস্তানী বাঙ্গালী ভাই-বোনদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মোহাম্মাদ রাজু, শেখ ইয়াসির, মোঃ শাবান, শেখ আলী ইমাম পাপ্পু, এ আলী মনা, আনোয়ার হোসেন, মাহতাব ভাসানী, আসমা বেগম, আরমান দিল্লিওয়ালা, সাব্বির, ফয়সাল, শেখ আনিসুর রহমান বেচু প্রমূখ।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button