রাজনীতি

কুমিল্লা ভোটে নেটওয়ার্ক সমস্যা- বাহার বলেন নৌকাই জিতবে -সাক্কু বলেন জয়  ১০০%

কুমিল্লা থেকে শফিক রহমান / সাইফুল বারী মাসুম : কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) ভোটে নেটওয়ার্ক সমস্যায় ইভিএমে ভোট দিতে দেরি হচ্ছে। সর্বত্রই শান্তিপূর্ণ ভোট হচ্ছে। কোথাও কোথাও ভোট চলছে উৎসবমুখর অবস্থায়। ওদিকে নির্বাচনে ভোট দিয়ে সদর আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেছেন, নৌকার বিজয় হবেই হবে। নৌকাকে বিজয়ী করতে শ্যাডো বাহারই যথেষ্ট।ওদিকে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. মনিরুল হক সাক্কু।

এমপি বাহার ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুল কেন্দ্রে সকাল পৌনে ১১টায় ভোট দেন তিনি। ওদিকে বিভিন্ন কেন্দ্রে নেটওয়ার্ক সমস্যায় ইভিএমে ভোট প্রদানে দেরী হচ্ছিল বলে অভিযোগ করেছেন ভোটাররা। তাছাড়া বৃষ্ঠিজনিত সমস্যায় বাড়তি ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অনেকে ক্ষুদ্ধ। এছাড়া কোথাও কোনো নিরাপত্তা সমস্যা এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি।

যাহোক, ভোট দেওয়া শেষে কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন এমপি বাহার। এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে আমাকে এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। আমি প্রার্থীদের পক্ষে কোনো জনসংযোগ করিনি, প্রচারেও ছিলাম না। তবুও তারা আমাকে চিঠি দিয়েছে। পক্ষান্তরে তাদের চিঠি নৌকার প্রার্থীর জন্য উপকারই হয়েছে। কারণ এই চিঠির পর কুমিল্লার মানুষ একজোট হয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করেছে। তিনি আরও বলেন, ইসির চিঠির ভাষাও সুন্দর ছিল না। একজন সংসদ সদস্যকে তারা এভাবে বলতে পারেন না। এই আইনটি সংশোধনের জন্য আমি সংসদে কথা বলব।

এর আগে সকাল ৮টা থেকে সব কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। নির্বাচনে ৫ মেয়র প্রার্থীসহ ২৭টি সাধারণ ও ৯টি সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ১৪৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। কুসিকের ২৭টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ২ লাখ ২৯ হাজার ৯২০ জন।

নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচজন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত আরফানুল হক রিফাত (নৌকা), মো. মনিরুল হক সাক্কু (টেবিল ঘড়ি), মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন কায়সার (ঘোড়া), কামরুল আহসান বাবুল (হরিণ) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রাশেদুল ইসলাম (হাতপাখা)।

জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট সাক্কু

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. মনিরুল হক সাক্কু। বুধবার (১৫ জুন) নগরীর হোচ্ছামিয়া বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। সাক্কু বলেন, আবহাওয়াটা ভালো হলে আমার জন্য একটু ভালো হতো। ইনশাআল্লাহ জয়ের ব্যাপারে আমি হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত।

নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে তিনি বলেন, মাত্র তো ১ ঘণ্টা গেল। হোক না আরো, তারপর বলা যাবে।শেষ পর্যন্ত থাকবেন কিনা জানতে চাইলে সাক্কু বলেন, ইনশাআল্লাহ, ঢুকে গেলে তো আর উঠে যাওয়া যায় না, একটা রেজাল্ট নিয়ে যাইতে হয়। জয়-পরাজয় যেটাই হোক একটা রেজাল্ট নিয়ে যাব ইনশাল্লাহ।

নৌকার বিজয় হবেই হবে। নৌকাকে বিজয়ী করতে শ্যাডো বাহারই যথেষ্ট।ওদিকে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. মনিরুল হক সাক্কু।

এমপি বাহার ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুল কেন্দ্রে সকাল পৌনে ১১টায় ভোট দেন তিনি। ওদিকে বিভিন্ন কেন্দ্রে নেটওয়ার্ক সমস্যায় ইভিএমে ভোট প্রদানে দেরী হচ্ছিল বলে অভিযোগ করেছেন ভোটাররা। তাছাড়া বৃষ্ঠিজনিত সমস্যায় বাড়তি ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অনেকে ক্ষুদ্ধ। এছাড়া কোথাও কোনো নিরাপত্তা সমস্যা এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি।

যাহোক, ভোট দেওয়া শেষে কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন এমপি বাহার। এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে আমাকে এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। আমি প্রার্থীদের পক্ষে কোনো জনসংযোগ করিনি, প্রচারেও ছিলাম না। তবুও তারা আমাকে চিঠি দিয়েছে। পক্ষান্তরে তাদের চিঠি নৌকার প্রার্থীর জন্য উপকারই হয়েছে। কারণ এই চিঠির পর কুমিল্লার মানুষ একজোট হয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করেছে। তিনি আরও বলেন, ইসির চিঠির ভাষাও সুন্দর ছিল না। একজন সংসদ সদস্যকে তারা এভাবে বলতে পারেন না। এই আইনটি সংশোধনের জন্য আমি সংসদে কথা বলব।

এর আগে সকাল ৮টা থেকে সব কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। নির্বাচনে ৫ মেয়র প্রার্থীসহ ২৭টি সাধারণ ও ৯টি সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ১৪৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। কুসিকের ২৭টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ২ লাখ ২৯ হাজার ৯২০ জন।

নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচজন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত আরফানুল হক রিফাত (নৌকা), মো. মনিরুল হক সাক্কু (টেবিল ঘড়ি), মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন কায়সার (ঘোড়া), কামরুল আহসান বাবুল (হরিণ) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রাশেদুল ইসলাম (হাতপাখা)।

জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট সাক্কু

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ের ব্যাপারে হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. মনিরুল হক সাক্কু। বুধবার (১৫ জুন) নগরীর হোচ্ছামিয়া বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। সাক্কু বলেন, আবহাওয়াটা ভালো হলে আমার জন্য একটু ভালো হতো। ইনশাআল্লাহ জয়ের ব্যাপারে আমি হানড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত।

নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে তিনি বলেন, মাত্র তো ১ ঘণ্টা গেল। হোক না আরো, তারপর বলা যাবে।শেষ পর্যন্ত থাকবেন কিনা জানতে চাইলে সাক্কু বলেন, ইনশাআল্লাহ, ঢুকে গেলে তো আর উঠে যাওয়া যায় না, একটা রেজাল্ট নিয়ে যাইতে হয়। জয়-পরাজয় যেটাই হোক একটা রেজাল্ট নিয়ে যাব ইনশাল্লাহ।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button