বিশেষ প্রতিবেদন

‘জাতির পিতার খুনীচক্র আমাকে সরিয়ে দিতে চায়’

 

বিশেষ প্রতিনিধি : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনীচক্র আমাকে সরিয়ে দিতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, খুনিচক্র এখনও তৎপর রয়েছে। ঘাতকরা একসময় আমাদের বাসায় নিয়মিত আসা-যাওয়া করত। যে জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সারাটি জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, সেই বাঙালি হয়ে কীভাবে ঘাতকরা জাতির পিতার বুকে গুলি চালিয়েছিল; সেই খুনিচক্র এখনও তৎপর। সেই চক্র তাকে ও আওয়ামী লীগকে সরিয়ে দিতে চায় বলেও জানিয়েছেন সরকার প্রধান। বুধবার (০৩ আগস্ট) গণভবনে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির নবনির্বাচিত বোর্ড সদস্যরা সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেসসচিব সারোয়ার ই সরকারের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার রাতে দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া শেখ হাসিনা দেশে ফেরেন এই ঘটনার ছয় বছর পর। এরপর তাকে হত্যা করতে একের পর এক হামলা চালানো হয়। তার বাসায়, সফরে, ট্রেনে, গাড়িতে, জনসভায় গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। হয়েছে গ্রেনেড হামলাও। ৭৬ কেজি বোমা পুঁতে রেখে হত্যার চেষ্টা ধরা পড়ে যায় ঘটনাচক্রে।বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঘাতকরা একসময় আমাদের বাসায় নিয়মিত আসা-যাওয়া করত। যে জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সারাটি জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, সেই বাঙালি হয়ে কীভাবে ঘাতকরা জাতির পিতার বুকে গুলি চালিয়েছিল?

১৫ আগস্টের স্মৃতিচারণা করে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘জাতির পিতা রেডক্রস সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন মানবতার কল্যাণে সেবা করার জন্য। ‘৭৫-এ জাতির পিতাকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করার পর সেই রেডক্রসেরই এক টুকরা কাপড়কে কাফন বানিয়ে তাকে দাফন করা হয়েছিল।রাজধানীতে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি পরিচালিত হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের মর্যাদা ফিরিয়ে আনাসহ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে আধুনিকীকরণের একটি পরিকল্পনা প্রণয়নের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

সাক্ষাৎকালে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বোর্ড সদস্যরা বন্যা, করোনা, রোহিঙ্গাসহ দুর্যোগকালে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির তৎপরতা সম্পর্কে সরকারপ্রধানকে অবহিত করেন। তারা বাংলাদেশে এই সোসাইটি প্রতিষ্ঠার জন্য বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সেই সঙ্গে ১৫ আগস্টের হত্যাযজ্ঞের নিন্দা করেন।দুর্যোগকালে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কর্মকাণ্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে মানবতার সেবায় সম্পৃক্ত করার উদাত্ত আহ্বান জানান।

আগামী ৪ বছরের জন্য আন্তর্জাতিক রেডক্রস সংস্থা আইএফআরসির সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান এ টি এম আব্দুল ওয়াহাবকে অভিনন্দনও জানান সরকারপ্রধান। সাক্ষাতে সোসাইটির চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহাব ছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান নূরুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ এম এ সালাম, মহাসচিব কাজী সফিকুল আজম, আরমা দত্ত, এম মঞ্জুরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

 

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button