লিড নিউজ

বিশ্ব ভয়াবহ বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে-আলতু ফালতুদের দলে ঢোকাবে না: প্রধানমন্ত্রী

 

ঢাবি প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্ব ভয়াবহ বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে কাজেই এখনই সকলকে সাবধান হতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। সামনে পয়সা দিয়েও খাবার পাওয়া যাবে না। সেই ক্ষেত্রে আমাদের নিজেদের খাবার নিজেদের উৎপাদন করতে হবে। তিনি ছাত্রলীগ কে উদ্দেশ্য করে বলেন, আলতু ফালতুদের ঢোকালে দলের বদনাম দেশের বদনাম হয়। ছাত্রলীগ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, গ্রুপ বাড়ানোর জন্য আলতু-ফালতু লোক ঢোকানো যাবে না। তাতে নিজেদের বদনাম, দলের বদনাম, দেশের বদনাম।

বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ছাত্রলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছাত্রলীগ জাতির পিতার হাতে গড়া। আমি জানি, ছাত্রলীগ সম্পর্কে অনেক অনেক কথা লেখা হয়। এত বড় একটা সংগঠন, তার মধ্যে কিছু কিছু তো…আমরা ক্ষমতায় আছি বলে অনেকেই ভেতরে ঢুকে যায়, ঢুকে নিজেরাই গোলমাল করে, বদনামটা ছাত্রলীগের ওপরে পড়ে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছাত্রলীগকে বলব সংগঠন করার সময় গ্রুপ বাড়ানোর জন্য আলাতু-ফালতু লোক দলে ঢুকাবে না। তাতে নিজেদের বদনাম, দলের বদনাম, দেশের বদনাম। কারণ আমাদের পেছনে তো লোক লেগেই আছে। লেগেই থাকবে। ছাত্রদল যত অপকর্ম করে গেছে, সেটা নিয়ে কথা নেই। কিন্তু ছাত্রলীগের একটু হলে বড় নিউজ। এটা নিজেদের ঠিক থাকতে হবে।

ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের পড়াশোনা করার জন্য নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। জাতির পিতার লেখা ‘আমার দেখা নয়া চীন’, ‘কারাগারের রোজনামচা’, ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়লে অনেক কিছু জানা যাবে বলে জানান শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সিক্রেট ডকুমেন্ট সবাইকে পড়ার অনুরোধ করছি। যেটা পড়লে অনেক শেখার আছে, জানার আছে। রাজনীতি করার অনেক জ্ঞান অর্জন করা যাবে।ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানান সরকার প্রধান। বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় অর্থনীতির অবস্থা ভয়াবহ। আমরা আগে থেকেই যদি সাবধান হতে পারি, তাহলে সামাল দিতে পারব। প্রত্যেকে নিজের ঘরে, হলে, ক্লাস থেকে বের হওয়ার সময় সুইচগুলো বন্ধ করে দিতে হবে। এইভাবে আমাদের বিদ্যুৎ, পানি ও জ্বালানির সাশ্রয় করতে হবে। অহেতুক ঘোরাঘুরি করার দরকার নেই। পায়ে হাঁটলে স্বাস্থ্য ভালো হয়, শরীরচর্চাও হয়।

বিশ্ব ভয়াবহ বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রত্যেকে যার যার গ্রামের বাড়ি এবং যেখানে বসবাস করবে, হল কিংবা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হোক, তাতে ব্যাপকভাবে গাছ লাগানো, চাষ করা এবং উৎপাদন বাড়াও। কারণ বিশ্বে কিন্তু আরও ভয়াবহ অবস্থা হবে। পয়সা দিয়েও খাবার পাওয়া যাবে না। সেই ক্ষেত্রে আমাদের নিজেদের খাবার নিজেদের উৎপাদন করতে হবে। ছাত্রলীগ যেমন ধান কাটায় সাহায্য করেছে, দরকার হলে ধান রোপণেও সাহায্য করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, চাওয়া-পাওয়ার ঊর্ধ্বে উঠে, ত্যাগ করে এগোতে পারলে সঠিক নেতা হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলা যায়। গড্ডলিকাপ্রবাহের মতো অর্থ-সম্পদের পেছনে ছুটলে অর্থ-সম্পদে ভেসে যেতে হয়। এতে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতাও থাকে না। দেশকেও কিছু দেওয়া যায় না, মানুষকেও দেওয়া যায় না। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান এবং সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button