জাতীয়

সচিবালয়ে অফিস করাকালীন তথ্য সচিবের চাকরী নাই-

বিশেষ প্রতিনিধি : সচিবালয়ে অফিস করাকালীন তথ্য সচিবের চাকরী নাই-। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠিয়েছে সরকার।আগামী বছরের (২০২৩ সাল) ২৫ অক্টোবর চাকরি থেকে অবসরে যাওয়ার কথা ছিল মকবুল হোসেনের। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় রোববার এক প্রজ্ঞাপনে এ নির্দেশ জারি করেছে। এ সময় তথ্য সচিব সচিবালয়ে অফিস করছিলেন।

একাধিক সূত্র জানায়-অভিযোগ রয়েছে সিদ্ধান্ত গ্রহণে তথ্য সচিব ছিলেন ধীর গতির..! এ কারণে সরকারি অনেক কাজ আটকে যাওয়ার অভিযোগ ছিল তার বিরুদ্ধে। এছাড়াও দাপ্তরিক কাজের বিষয়ে তিনি ভিন্নমত পোষণ করতেন। এসব কারণে সরকারি কাজে গতি হারানোর প্রেক্ষাপটে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় তাকে অব্যাহতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে বলে জানা গেছে।

এর বাইরে ক্ষমতার অপব্যবহার এবং গত কয়েক মাসে ঘন ঘন বিদেশ সফরের বিষয়েও তিনি আলোচিত হয়েছিলেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কে এম আলী আজম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে-সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮ এর ধারা ৪৫ অনুযায়, জনস্বার্থে তাকে সরকারি চাকুরি থেকে অবসরে পাঠানো হয়। এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

মকবুল হোসেন গত বছরের ৩১ মে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি যৌথমূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তরে রেজিষ্ট্রার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। দায়িত্ব পালন করেছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হিসেবেও। তিনি বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের ১০ম ব্যাচের কর্মকর্তা হিসেবে ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন।

মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে কেন তাকে অবসরে পাঠানো হলো জানতে চাইলে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘তাকে অবসর দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এটা জেনেছি, কিন্তু কেন অবসর দেওয়া হলো, সেই বিষয়ে আমি অবহিত নই।’

অন্যদিকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ, পদোন্নতি ও প্রেষণ (এপিডি) অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. আব্দুস সবুর মন্ডল বলেন, ‘কারও চাকরির মেয়াদ ২৫ বছর হলে সরকার যে কাউকে অবসরে পাঠাতে পারে। আর তার চাকরির মেয়াদ কয়েক মাস ছিল।’

মকবুল হোসেন মাঠ প্রশাসনে সহকারী কমিশনার, সহকারী কমিশনার (ভূমি), প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক এবং জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য (ভূমি ও সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button