রাজনীতি

সংসদে অধিবেশনে সবার চোখ কাদের-রাঙ্গাঁর ওপর

 

সংসদ রিপোর্টার : আজ জাতীয় সংসদে অধিবেশনে সবার চোখ ছিল কাদের-রাঙ্গাঁর ওপর। কি করে তাঁরা তা নজরদারি করেছে সবাই। আজ একাদশ জাতীয় সংসদের ২০তম অধিবেশন। রোববার (৩০ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়।অধিবেশনে সরকার দলীয় সংসদ সদস্যসহ অন্যান্য দলের এমপিরা যোগ দিয়েছেন। তবে সবার চোখ ছিল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের ও পার্টি থেকে বহিষ্কৃত সংসদের বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁর ওপর।এদিনের অধিবেশনে বিরোধীদলীয় উপনেতার আসনেই বসেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি। আর চিফ হুইপের আসনে বসেছেন মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ। তবে তাদের মধ্যে চলছে রাগ-বিরাগ।

সংসদীয় দলের সভা শেষ করে বিকেল ৪টা ৩১ মিনিটে জিএম কাদের অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন। তবে সেখানে আগে থেকেই চিফ হুইপের আসনে বসেছিলেন রাঙ্গাঁ। জিএম কাদেরের সঙ্গে অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করে দলটির মহাসচিব মজিবুল হক চুন্নু বসেন রাঙ্গাঁর পাশের চেয়ারে। কিন্তু দুজন পাশাপাশি চেয়ারে বসলেও কেউ কারও সঙ্গে কথা বলছেন না। এমনকি কেউ কারও মুখের দিকেও তাকাচ্ছেন না।ঘড়ির কাঁটা ঠিক ৪টা ৩০মিনিটের অল্প কিছুক্ষণ আগে অধিবেশন কক্ষে আসেন সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৪টা ৩৩ মিনিটে প্রবেশ করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এদের আগেই বিরোধীদলের চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ নিজের আসনে বসেন।

অধিবেশন শুরুর পর একে একে বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যরা অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন। এ সময় রাঙ্গাঁকে একটি কাগজ ও পেন্সিল নিয়ে নেতাদের কাছে কিছু একটা বলতে দেখা যায়। প্রথমে সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার কাছে কিছু একটা বলেন বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ। মুখে কথা না বলে মাথা নাড়িয়ে ‘না’ সূচক জবাব দেন আবুল হোসেন। এরপর জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের কাছে একইভাবে কিছু বলতে চান রাঙ্গাঁ। তিনিও একইভাবে মাথা নেড়ে ‘না’ সূচক জবাব দেন। একইভাবে না করেন জাতীয় জাপারন মহাসচিব ও সংসদ সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু।

সংসদে বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যদের আসন বণ্টন অনুযায়ী প্রথম সারির প্রথম চেয়ারটি বিরোধীদলীয় নেতার। সেই আসন ফাঁকা রেখে পরের আসনে বসেন জিএম কাদের। তারর পাশে বসেন আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। এর পরের আসনে বসেন কাজী ফিরোজ রশীদ। কাজী ফিরোজ রশিদ ও আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে কিছুক্ষণ কানে-মুখে কথা বলতে দেখা যায়। এ সময় জিএম কাদের তার আসনে বসে শোকপ্রস্তাবসহ অন্যান্য কাগজপত্র দেখছিলেন। পেছনের আসনে বসে মসিউর রহমান রাঙ্গাঁও একইরকম কাগজপত্র দেখছিলেন।

 

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button